প্রসপেক্টাস

গঠন

বিশিষ্ট এবং স্বনামধন্য ব্যাংকার কাজী মো: শফিকুর রহমান অনুধাবন করেন যে, দেশের অধিকাংশ সেক্টরের যেমন- বিসিএস ক্যাডার, ডাক্তার, প্রকৌশলী, কৃষিবিদ, সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ বাহিনী, ব্যবসায়ী সম্প্রদায় ও অন্যান্য সকলেরই পেশাগত প্রয়োজন ও অন্যান্য বিষয়ে কল্যাণের জন্য ফোরাম বা অ্যাসোসিয়েশন রয়েছে। কিন্তু ব্যাংকিং দেশের একটি বড় ও গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর হওয়া সত্ত্বেও অদ্যাবধি ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্টানের ফোরাম বা অ্যাসোসিয়েশন নেই। তিনি উপলব্ধি করেন যে, ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্টানের কর্মকর্তা বা তাদের পরিবারের সদস্য বা নির্ভরশীল পরিজনদের পক্ষে বক্তব্য তুলে ধরা প্রয়োজন ও তাদের কল্যাণের জন্য একক ও সু-সংগঠিত একটি সংগঠন অতিব জরুরি। তাঁর ব্যক্তিগত উদ্যোগে বিগত ১৮ অক্টোবর ২০১৪ ইং তারিখে ক্যাপটেইনস ওয়ার্ল্ড, শহীদ জাহাঙ্গীর গেইট, ঢাকায় ব্যাংকারগণকে নিয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় দেশের তেরটি (১৩) টি বিভিন্ন ব্যাংক থেকে কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহণ করেন। উক্ত সভার আলোচনায় বিশেষভাবে উপলব্ধি করা হয় যে, ব্যাংক কর্মকর্তাগণের কল্যাানমুখী কার্যক্রম ও সাধারণ স্বার্থসংক্রান্ত বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য কোন প্লাটফর্ম বা ফোরাম নাই যা অতীব জরুরি। তাই সর্বসম্মতিক্রমে “ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি)” নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং জনাব কাজী মো: শফিকুর রহমান কে আহ্বায়ক, জনাব আহসান হাবীব কে সদস্য সচিব ও জনাব আলমগীর হাসান কে কোষাধ্যক্ষের দায়িত্ব দিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত আহ্বায়ক কমিটির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় গত ২৫ অক্টোবর, ২০১৬ ইং তারিখে বাণিজ্য মন্ত্রনালয় থেকে “ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি)” এর অনুকূলে লাইসেন্স নং ২৫/২০১৬ ইস্যু করা হয় এবং ১৫ নভেম্বর ২০১৬ ইং তারিখে যৌথমূলধন কোম্পানী ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তর, ঢাকা কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন নং টিও-৯৩৬/২০১৬ প্রদান করা হয়। ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি) ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এবং অবসর প্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং তাদের পরিবারের সদস্যগণের একটি স্বীকৃত প্লাটফরম এবং সম্মিলিত কণ্ঠ হিসেবে ভূমিকা রাখছে।

মেমোরেন্ডাম এন্ড আর্টিকেলস অব অ্যাসোসিয়েশন (.pdf file)


এক্সিকিউটিভ কমিটি

বর্তমানে মোট ২৩ জন সদস্যের সমন্বয়ে গঠিত এক্সিকিউটিভ কমিটি এর মাধ্যমে মেমোরেন্ডাম এন্ড আর্টিকেলস অব অ্যাসোসিয়েশন মোতাবেক ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি) পরিচালিত হচ্ছে। মেমোরেন্ডাম এন্ড আর্টিকেলস অব অ্যাসোসিয়েশন অনুযায়ী প্রতি দুই বৎসর অন্তর এক্সিকিউটিভ কমিটি পুনর্গঠিত হবে।


অ্যাডভাইজরি বোর্ড

বাংলাদেশের বিশিষ্ট এবং স্বনামধন্য তিন জন ব্যাংকারের সমন্বয়ে ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি) এর অ্যাডভাইজরি বোর্ড গঠিত হয়েছে।
ক) খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ (মৃত)
প্রাক্তন ডেপুটি গভর্নর
বাংলাদেশ ব্যাংক
খ) মোহাম্মদ হোসেন
প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক
সোনালী ব্যাংক লিমিটেড
গ) মোহাম্মদ লকিয়তউল্লাহ
ভাইস চেয়ারম্যান
হজ ফিন্যান্স কোম্পানী লিমিটেড এবং
প্রাক্তন ভাইস চেয়ারম্যান
বোর্ড অব ডাইরেক্টরস
ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড

আঞ্চলিক উপ কমিটি

ইতিমধ্যে চট্রগ্রাম আঞ্চলিক উপ কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিডব্লিউএবি এর সদস্য সংখ্যার ভিত্তিতে বাংলাদেশের অন্যান্য বিভাগ এবং জেলায় আঞ্চলিক উপ কমিটি গঠন করা হচ্ছে। আঞ্চলিক উপ কমিটিতে সদস্যভুক্ত হওয়ার জন্য আগ্রহী সদস্যগণ প্রেসিডেন্ট, বিডব্লিউএবি এর সাথে যোগাযোগ করুন।


লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

ক) ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি) এর প্রধান উদ্দেশ্য সমূহের মধ্যে রয়েছে সদস্যগণকে প্রশিক্ষণ, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, কেইস স্টাডি ইত্যাদি এর মাধ্যমে দক্ষ কার্যনির্বাহী হিসেবে গড়ে তোলা, যেন তারা ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের দৈনন্দিন সমস্যা এবং গ্রাহকগণের মতামত অনুসারে তাদের সমস্যার সমাধান এবং সেবার মান উন্নয়ন করতে পারে। এর ফলে সদস্যগণ তাদের বর্তমান প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে আরো বেশি ভূমিকা রাখতে পারবে, দক্ষতার মূল্যায়ন হবে এবং অন্য প্রতিষ্ঠানে চাকুরির ক্ষেত্রেও অগ্রাধিকার পাবে।
খ) মাসিক সঞ্চয় প্রকল্পের টাকা সদস্যগণের সম্মতিতে পর্যায়ক্রমে লাভজনক বিভিন্ন প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হবে, প্রকল্প শুরু হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত সকল টাকা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শরীয়াভিত্তিক অ্যাকাউন্টে বর্তমান প্রচলিত অধিক মুনাফায় ডিপোজিট করে রাখা হবে।
গ) বিডব্লিউএবি তাদের সদস্যগণের অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনায় সাহায্য এবং বয়স্ক সদস্যগণের জন্য জরুরী চিকিৎসা সেবা প্রদানে কাজ করবে।
ঘ) বিডব্লিউএবি এর সদস্যগণের ব্যক্তিগত বিশেষ প্রয়োজনে আর্থিক সহায়তা এবং তাদের ছেলে -মেয়েদের সফল উদ্যোক্তা/ ব্যবসায়ী হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করবে।
ঙ) সদস্যগণের মেধাবি এবং কৃতি সন্তানদের বাৎসরিক বৃত্তি বা পুরস্কার প্রদান করা হবে।
চ) বিডব্লিউএবি তাদের সামর্থ অনুযায়ী বন্যা কবলিত এলাকা, ঘূর্ণিঝড়, মহামারি এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সদস্যদের মাধ্যমে তাদের নিজ এলাকায় সাহায্য করবে, এমনকি সারা দেশেও সাহায্য করবে।
ছ) বিডব্লিউএবি প্রাথমিকভাবে হাউজিং প্রজেক্টের মাধ্যমে সদস্যগণের চাহিদা অনুযায়ী যৌক্তিক এবং সুলভ মূল্যে ফ্লাট ক্রয় করার ব্যবস্থা করবে। সকল ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, অবসর প্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং তাদের নির্ভরশীল/পরিজনদের সুলভ মূল্যে উন্নত চিকিৎসার জন্য "কম্বাইন্ড ব্যাংকারস হসপিটাল" প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।
জ) সদস্যগণের স্বার্থে শপিং মল, কমিউনিটি হল, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ইত্যাদি প্রকল্প প্রতিষ্ঠা করা হবে। এই সকল প্রকল্পে ঝুঁকি-মুক্ত বিনিয়োগ এর মাধ্যমে অধিক মুনাফা অর্জনের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
ঝ) বিডব্লিউএবি এর রির্সাচ এন্ড ডেভেলপমেন্ট (আরএন্ডডি ) সেল গঠন করা হয়েছে। এই আরএন্ডডি সেল থেকে সমসাময়িক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের উপর নিউজ লেটার প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
ঞ) বিডব্লিউএবি এর লার্নিং এন্ড এইচআর ডেভেলপমেন্ট সেন্টার গঠন করা হয়েছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে বিডব্লিউএবি এর সদস্যগণকে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ এবং জ্ঞানসম্পন্ন মানব সম্পদ তৈরি করা হবে।
ট) অ্যাকাডেমিক সফলতার জন্য বিডব্লিউএবি তাদের সদস্যগণের সন্তানদের পুরস্কারের মাধ্যমে উৎসাহিত করা অব্যাহত রাখবে।
ঠ) বিডব্লিউএবি তাদের সদস্য এবং সদস্যগণের সন্তানদের পেশাদারী দক্ষতা অর্জন এবং উদ্যোক্তা হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য প্রশিক্ষণ প্রোগ্রাম পরিচালনা করে দেশের বেকারত্ব দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
ড) বিডব্লিউএবি তাদের সদস্যগণের মধ্য থেকে প্রতিবৎসর সফল ব্যাংকার নির্বাচন করে পুরস্কৃত করবে।
ঢ) ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা এবং গ্রাহকগণের সেতুবন্ধনের জন্য বিভিন্ন সভা, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, ভার্চুয়াল মিটিং ইত্যাদি আয়োজন করবে।
ণ) বিডব্লিউএবি তাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে একটি আন্তর্জাতিক মানের প্রতিষ্ঠানে রুপান্তরিত হওয়ার প্রচেষ্টা নিচ্ছে।


সদস্য হওয়ার যোগ্যতা

বাংলাদেশের সকল বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এবং অবসরপ্রাপ্ত সকল কর্মকর্তাগণ “ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (বিডব্লিউএবি)” এর সদস্য হতে পারবে।
সারা বৎসর রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে সদস্য হওয়া যাবে।
সদস্য হওয়ার জন্য তথ্য
ক) নাম
খ) পদবি
গ) ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নাম এবং শাখার নাম
ঘ) প্রতিষ্ঠানে যোগদান করার স্থানের নাম
ঙ) ব্যাক্তিগত মোবাইল ও ই-মেইল নম্বর
উল্লেখিত তথ্য সমূহ এসএমএস এর মাধ্যমে ০১৬২৮৫৫১২৮৬ মোবাইল নম্বরে অথবা
bwab14@gmail.com ই-মেইল আইডিতে অবহিত করুন। অতি সত্বর ই-মেইলের মাধ্যমে আপনার সদস্য নম্বর জানিয়ে দেয়া হবে। সদস্য ফি জমা দেয়ার তথ্য এসএমএস এর মাধ্যমে ০১৬২৮৫৫১২৮৬ মোবাইল নম্বরে অথবা bwab14@gmail.com ই-মেইল আইডিতে অবহিত করুন।
অনলাইন/অটো রেজিষ্ট্রেশনের জন্য বিডব্লিউএবি ওয়েবসাইট এর
রেজিষ্ট্রেশন মেনুতে ক্লিক করুন। সদস্য ফরম সাবমিট করার পর তাৎক্ষণিকভাবে ওয়েবসাইটের মেম্বার পাতায় সদস্য নম্বর সহ আপনার তথ্য প্রকাশিত হবে।


সদস্য ফি

সাধারণ সদস্য অথবা আজীবন সদস্য হওয়ার সুযোগ আছে।
ক) সাধারণ সদস্য ফি ৫,০০০ (পাঁচ হাজার) টাকা এবং বাৎসরিক নবায়ন যোগ্য ফি ৫০০ (পাঁচ শত) টাকা।
খ) আজীবন সদস্য ফি ১০,০০০ (দশ হাজার) টাকা, যা ভবিষ্যতে নবায়ন করতে হবে না।
সদস্য ফি জমা দেয়ার জন্য বিডব্লিউএবি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর তথ্য পরবর্তী অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে।


মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প

মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প এর মাধ্যমে বিডব্লিউএবি সদস্যগণ ৫০০ টাকা থেকে ১০,০০০ টাকা পর্যন্ত প্রতি মাসে ডিপোজিট করে রাখতে পারবে। এই টাকা বিডব্লিউএবি কর্তৃক ঝুঁকিমুক্ত লাভজনক প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হচ্ছে এবং লভ্যাংশ আনুপাতিক হারে সদস্যগণকে প্রদান করা হচ্ছে। অবশিষ্ট টাকা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শরিয়াহ ভিত্তিক অ্যাকাউন্টে বর্তমান প্রচলিত অধিক মুনাফায় ডিপোজিট করে রাখা হচ্ছে। যেকোন সদস্য মাসিক সঞ্চয় প্রকল্পের টাকা মাসিক, ত্রৈমাসিক, অর্ধ-বার্ষিক, বার্ষিক হিসেবে জমা দিতে পারবে। প্রত্যেক সদস্যের জন্য পৃথক ফাইল খোলা হবে। বাৎসরিক প্রতিবেদন ই-মেইলের মাধ্যমে অবহিত করা হবে।


সদস্যপদ প্রত্যাহার

এক্সিকিউটিভ কমিটির অনুমোদনক্রমে যেকোন সদস্য তার সদস্যপদ প্রত্যাহার করতে পারবে। সদস্যপদ প্রত্যাহারের জন্য বিডব্লিউএবি এর প্রেসিডেন্ট বরাবর লিখিতভাবে আবেদন করতে হবে।


মৃত্যুকালীন টাকা উত্তোলন

এক্সিকিউটিভ কমিটির অনুমোদনক্রমে যেকোন সদস্য তার সদস্যপদ প্রত্যাহার করতে পারবে। কোন সদস্যের মৃত্যুর পরে তাহার মনোনীত ব্যক্তি তাহার বিডব্লিউএবি এর অ্যাকাউন্টে রক্ষিত টাকা উত্তোলন করতে পারবে।


বিডব্লিউএবি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর তথ্য

ক) সাধারণ সদস্য ফি ৫,০০০ (পাঁচ হাজার) টাকা / বাৎসরিক নবায়ন যোগ্য ফি ৫০০ (পাঁচ শত) টাকা / বিডব্লিউএবি আইডি কার্ড ফি ৩০০ (তিন শত) টাকা
এবং আজীবন সদস্য ফি ১০,০০০ (দশ হাজার) টাকা, জমা দেয়ার জন্য
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর নাম:
Bankers’ Welfare Association Bangladesh
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর: 0460210009986 direct or through EFTN
(Routing No. 145264851 where necessary)

ঠিকানা: MTB Centre Corporate Branch, Gulshan-1, Dhaka
এবং
বিডব্লিউএবি বিকাশ মার্চেন্ট মোবাইল নম্বর ০১৬২৮৫৫১২৮৬

Please click HERE for information about user manual.
খ) ব্যাংকার্স সিটি হাউজিং সোসাইটি এর টাকা জমা দেয়ার জন্য
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর নাম:
BWAB Project Fund
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর: 0046-0210010278
(Routing No. 145264851 where necessary)

ঠিকানা: MTB Centre Corporate Branch, Gulshan-1, Dhaka
এবং
বিডব্লিউএবি বিকাশ মার্চেন্ট মোবাইল নম্বর ০১৬২৮৫৫১২৮৬

Please click HERE for information about user manual.
গ) মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প (৫০০ - ১০,০০০ টাকা ডিপোজিট করার জন্য)
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর নাম:
BWAB Members' Contribution Fund
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর: 0046-0210010269 direct or through EFTN
(Routing No. 145264851 where necessary)

ঠিকানা: MTB Centre Corporate Branch, Gulshan-1, Dhaka
এবং
বিডব্লিউএবি বিকাশ মার্চেন্ট মোবাইল নম্বর ০১৬২৮৫৫১২৮৬
Please click HERE for information about user manual.
মাসিক সঞ্চয় প্রকল্পের টাকা জানুয়ারি ২০১৯ ইং থেকে উল্লেখিত বিউব্লিউএবি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এ জমা নেয়া হচ্ছে এবং প্রতি মাসের ১০ তারিখের মধ্যে উক্ত টাকা জমা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ঘ) মানবতার সেবায় Distressed Fund গঠন:
সমাজের গরিব, অসহায়, দুর্দশাগ্রস্ত এবং হতদরিদ্র মানুষের সাহায্যার্থে ও চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে আসুন আমরা সবাই মিলে একটি ফান্ড গঠন করি।
BWAB এর সদস্যগণ, ব্যাংক / আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত / অবসরপ্রাপ্ত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ মানব দরদি সকল ব্যক্তি বর্গ সাহায্য করে অংশগ্রহন করতে পারেন। এমনকি যাকাত বা CSR Fund থেকেও সাহায্য করে অংশগ্রহন করতে পারেন।
ব্যাংক একাউন্টের তথ্য:

ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এর নাম: BWAB Collection Account
ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর: 0460210009986 direct through EFTN
(Routing No. 145264851 where necessary)

ঠিকানা: MTB Centre Corporate Branch, Gulshan-1, Dhaka
এবং
বিডব্লিউএবি বিকাশ মার্চেন্ট মোবাইল নম্বর ০১৬২৮৫৫১২৮৬

Please click HERE for information about user manual.


পুনরায় সদস্য হওয়ার জন্য

কোন সদস্য ব্যক্তিগত কারণে সদস্যপদ বাতিল করার পর পুনরায় এক্সিকিউটিভ কমিটির অনুমোদনক্রমে নতুনভাবে সদস্যভূক্ত হতে পারবে।


বাৎসরিক সমাবেশ ও বিনোদন

সকল সদস্যগণের সম্মতিক্রমে প্রতিবছর অন্তত: একবার (সম্ভব হলে পরিবারের সদস্যগণসহ) বিনোদনমূলক সমাবেশ/বনভোজন আয়োজন করা হবে।


বার্ষিক সাধারণ সভা

প্রতিবছর নির্দিষ্ট সময়ে বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হবে এবং উক্ত সভায় ব্যালেন্স শিট অনুমোদিত হবে। বার্ষিক সাধারণ সভায় সদস্যগণ কর্তৃক উপস্থাপিত গঠনমূলক সকল প্রস্তাব বা পরামর্শ গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করা হবে।


BWAB কর্তৃক অদ্যাবধি গৃহীত কল্যাণমূলক কর্মসূচী সমূহ

ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (BWAB) বাংলাদেশের সকল ব্যাংকার, তাদের পরিবার ও নির্ভরশীল সকল সদস্যগণের কল্যাণমুখী কর্মকান্ডে ভূমিকা রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। BWAB অদ্যাবধি যে সকল কর্মসূচি ও পদক্ষেপ গ্রহন করেছে তা এক নজরে নিম্নে প্রদান করা হলো:
BWAB বাংলাদেশ সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত লাইসেন্স নং ২৫/২০১৬, তারিখ - ২৫/১০/৮২০১৬ ইং এবং RJSC কর্তৃক TO -৯৩৬/২০১৬ তারিখ ১৫/১১/২০১৬ মাধ্যমে নিবন্ধনকৃত একটি আইনগত বৈধ প্রতিষ্ঠান।

  1. BWAB এর এ পর্যন্ত মোট ৪টি এজিএম যথা সময়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং ইসি মিটিং সমূহ নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
  2. বাংলাদেশের বিশিষ্ট এবং স্বনামধন্য তিন জন ব্যাংকারের সমন্বয়ে ব্যাংকার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (BWAB) এর অ্যাডভাইজরি বোর্ড গঠিত হয়েছে:
    1. ক) খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ (মৃত), প্রাক্তন ডেপুটি গভর্নর,বাংলাদেশ ব্যাংক
    2. খ) মোহাম্মদ হোসেন, প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সোনালী ব্যাংক লিমিটেড
    3. গ) মোহাম্মদ লকিয়তউল্লাহ, ভাইস চেয়ারম্যান, হজ্ব ফাইন্যান্স কোম্পানী লিমিটেড এবং প্রাক্তন ভাইস চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ডাইরেক্টরস, ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড
  3. মাসিক সঞ্চয় প্রকল্প এর টাকা BWAB কর্তৃক শরিয়াহ ভিত্তিক, ঝুঁকিমুক্ত ও সর্বোচ্চ লাভজনক হারে বিনিয়োগ করা হচ্ছে এবং লভ্যাংশ আনুপাতিক হারে সদস্যগণকে প্রদান করা হচ্ছে।
  4. BWAB এর অধিকাংশ সদস্যগণের মতামতের ভিত্তিতে সদস্যগণের সুবিধার্তে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পৃথক পৃথক প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ”ব্যাংকার্স হাউজিং প্রজেক্ট” গত ২৬ শে মার্চ ২০২২ইং তারিখে উদ্বোধন করা হয়েছে। হাউজিং প্রজেক্ট এর অবস্থান হচ্ছে সিভিক রিয়েল এস্টেট লিমিটেড কোম্পানী এর মুন-হিল প্রজেক্ট এর ভিতরে যা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত ”রাজউক পূর্বাচল নিউ টাউন” এর ২৮ নং সেক্টর সংলগ্ন তিনটি প্রশস্ত রাস্তা: সামনের দিকে ১৮০ ফুট প্রশস্ত এশিয়ান হাইওয়ে, ডান দিকে আশকোনার সাথে সংযুক্ত ১২০ ফুট প্রশস্ত রাস্তা এবং পিছনের দিকে রাজউক এর ১৫০ ফুট প্রশস্ত রাস্তা সমূহের মাঝে। ব্যাংক / আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত অবসরপ্রাপ্ত সকল কর্মকর্তাগণের কল্যাণে পর্যায়ক্রমে হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়), কমিউনিটি হল, শপিং কমপ্লেক্স, রিসোর্ট, পিকনিক স্পট, এসএমই প্রজেক্ট অথবা অন্য যে কোন ঝুঁকি মুক্ত প্রজেক্ট প্রতিষ্ঠা করা সহ অন্যান্য প্রকল্প বাস্তবায়নে BWAB পদক্ষেপ গ্রহন করেছে।
  5. কোভিড-১৯ প্রাক্কালে কার্যক্রম সমূহ:
    1. সরকারি সিদ্ধান্তের ন্যায় ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তাগণের সুবিধার্তে সাময়িকভাবে ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ রাখা এবং কোভিড-১৯ পরিস্থিতির উন্নতি বিবেচনায় স্বল্প সংখ্যক শাখার কার্যক্রম প্রয়োজনীয় সংখ্যক কর্মকর্তাগণকে দিয়ে পরিচালনা করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনর মহোদয় এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন করা হয়।
    2. কোভিড-১৯ প্রাক্কালে কর্তব্য পালনের জন্য ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণের অনুকূলে অতিরিক্ত ভাতা, স্বাস্থ্য বীমা এবং মৃত্যুকালীন ক্ষতিপূরণ সুবিধা অনুমোদন এর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের মাননীয় গভর্নর মহোদয়কে অনুরোধ পত্র প্রদান করা হয়।
    3. Covid-19 Monitoring Committee & Quick Response Team গঠন করা হয়েছে।
    4. BWAB এর সদস্য, তাদের পরিবারের সদস্য ও তাদের নির্ভরশীল ব্যক্তিগণ কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হলে বিনামূল্যে চিকিৎসার জন্য Dr. Nahida Begum MBBS এর সাথে BWAB কর্তৃক MOU সম্পাদন হয়।
    5. পরবর্তীতে BWAB এর সদস্যগণ, তাদের পরিবার ও নির্ভরশীল ব্যক্তিগণের Discount Rate এ কোভিড-১৯ টেস্ট সুবিধার জন্য BWAB কর্তৃক Ibn Sina, International Medical College Hospital (IMCH) CSBF Health Center এর সাথে MOU সম্পাদন করা হয়।
    6. নিম্নলিখিত বিষয় সমূহ বিবেচনা করার জন্য BAB, ABB এবং পৃথকভাবে সকল ব্যাংক এর MD & CEO গণকে অনুরোধ পত্র প্রেরন করা হয়:
        ক) কর্মকর্তাগণ যেন অযথা হয়রানির স্বীকার বা ক্ষতিগ্রস্থ না হয় এবং তাদেরকে শৃঙ্খলজনিত কারন ব্যতীত চাকুরিচ্যুত না করা হয় বা পদত্যাগে বাধ্য করা না হয়।
        খ) বেসরকারি ব্যাংক সমূহের কর্মকর্তাগণকে যেন বৈষম্য ব্যতীত Incentive Bonus প্রদান করা হয়।
        গ) সরকারি সিদ্ধান্ত মতে বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক সমূহের কর্মকর্তাগণকে পৃথক ভাতা সমূহ যেমন - বৈশাখী ভাতা ইত্যাদি প্রদান করা হয়।
    7. কোভিড-১৯ প্রাক্কালে ব্যাংক কর্মকর্তাগণের বেতন-ভাতা কমানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন না করে বিবেচনা করার জন্য দি সিটি ব্যাংক লিমিটেড এর চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ডাইরেক্টরস মহোদয়গণকে পত্র প্রেরনের মাধ্যমে অনুরোধ করা হয়।
    8. উপরে উল্লেখিত বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক এর গভর্নর মহোদয়কে দৃষ্টি আর্কষণ করে পত্র দেয়া হয় এবং বাংলাদেশ ব্যাংক এর সময়োচিত প্রয়োজনীয় নির্দেশ প্রদানের ফলে দি সিটি ব্যাংক লিমিটেড সহ সকল বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক বেতন-ভাতা কমানো থেকে বিরত থাকে এবং ব্যাংক সমূহ আর্থিক দূর্বলতার জন্য সমালোচিত না হয়ে তাদের সুনাম অটুট রাখতে সক্ষম হয়।
    9. Combined Bankers’ Hospital প্রতিষ্ঠা করার উদ্যোগ নেয়ার জন্য BWAB থেকে BAB কে পত্রের মাধ্যমে অনুরোধ করা হয়।
    10. নির্দিষ্ট হাসপাতালে ব্যাংক কর্মকর্তাগণের কোভিড-১৯ টেস্ট এবং চিকিৎসা করার জন্য BWAB কর্তৃক সকল বেসরকারি ব্যাংকের এমডি ও সিইও এবং চেয়ারম্যান, এবিবি মহোদয়গণকে পত্রের মাধ্যমে আবেদন করা হয়।
    11. BAB কর্তৃক ব্যাংক এর ব্যয় সংকোচনের ১৩টি বিষয়ে সুপারিশ প্রদান করে সকল ব্যাংক কে জানানো হলে, BWAB কর্তৃক নিম্নলিখিত বিষয়সমূহ বাস্তবায়নের জন্য BAB ও সকল ব্যাংক কে পত্র প্রেরন করা হয়:
        ক) কোন অবস্থাতেই কর্মকর্তাগণের বেতন-ভাতা যেন কমানো না হয়
        খ) সাধারণভাবে সকল কর্মকর্তাগণের বাৎসরিক Increment যেন বিবেচনা করা হয়
        গ) ব্যাংক এর বাৎসরিক মুনাফার অনুপাতে যেন Incentive Bonus বিবেচনা করা হয়
        ঘ) প্রত্যেক সকল ব্যাংক এ কর্মকর্তাগণের পদোন্নতি যেন অব্যাহত রাখা হয় এবং সকল ব্যাংক যেন একই ধরনের Promotion Criteria অনুসরণ করে।
        ঙ) সকল ব্যাংক এ কর্মকর্তাদের জন্য একই রকমের যেমন Probationary Officer, Officer, Senior Officer, Principal Officer, Senior Principal Officer, AVP, SAVP, VP, SVP, SEVP, DMD, Addl. MD এবং MD & CEO অনুসরন করা হয়।
    12. প্রেসিডেন্ট, বিডব্লিউএবি মহোদয় এর যথাযথ পদক্ষেপের ফলে উপরোক্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ Banik Barta,Banking News,bdnews24.com, Dhaka Times, jagonews24.com Jugantor পত্রিকা সমূহে Coverage পায়।
    13. ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তাগণের বেতন-ভাতা না কমানোর ও অন্যান্য স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে মতামত প্রদানের জন্য BWAB President Kazi Md. Shafiqur Rahman – Ekattor Journal, Ekattor TV Independent TV Live Program এর সুযোগ পান।
    14. ব্যাংক কর্মকর্তাগণের বেতন-ভাতা না কমানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ায় South Bangla Agriculture and Commerce Bank Limited এর চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ডাইরেক্টরস এবং ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মহোদয়গণকে BWAB President কর্তৃক পত্রের মাধ্যমে অভিনন্দন জানানো হয় ও প্রশংসা করা হয়।
    15. ব্যাংক কর্মকর্তাগণের বেতন-ভাতা না কমানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ায় NBL, MTBL ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে BWAB President কর্তৃক পত্রের মাধ্যমে অভিনন্দন জানানো হয় ও প্রশংসা করা হয়।।
    16. কোভিড-১৯ প্রাক্কালে ব্যাংক কর্মকর্তাগণের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ায় BWAB President কর্তৃক বাংলাদেশ ব্যাংক এর Honorable Governor ও তাঁর Team কে পত্রের মাধ্যমে অভিনন্দন জ্ঞাপন করা হয় ও প্রশংসা করা হয়।
    17. বিডব্লিউএবি প্রেসিডেন্ট মহোদয় এর বিবৃতির উপর ভিত্তি করে কয়েকটি মিডিয়া সংবাদ প্রকাশ করে যে, ২/৩ টি বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক তাদের ঊর্ধ্বতন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণকে চাকুরি থেকে অব্যাহতি প্রদানে বাধ্য করেছে। এই বিষয় সহ অন্যান্য পদক্ষেপ সমূহের বিষয়ে BWAB, বাংলাদেশ ব্যাংক এর ইতিবাচক মনোযোগ আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়।
  6. BWAB সদস্যগণের স্লোগান হলো-
    • আমি আমার কর্মরত প্রতিষ্ঠানকে ভালোবাসি।
    • সততা ও নিষ্ঠা আমার শক্তি।
    • আমি আমার কর্মরত প্রতিষ্ঠানের উন্নতিকল্পে ভূমিকা রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
    • আমি বিশ্বাস করি সফলতা ও অভিষ্ট লক্ষ অর্জন সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফল।
  7. BWAB এর স্লোগান হলো-
    1. ব্যাংক / আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সকল কর্মকর্তাগণের প্রতিনিধিত্ব করে।
    2. ব্যাংক / আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত / অবসরপ্রাপ্ত সকল কর্মকর্তাগণের ন্যায্য প্রয়োজন ও কল্যাণার্থে ভুমিকা রাখে।
    3. ব্যাংক / আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত / অবসরপ্রাপ্ত সকল কর্মকর্তাগণের সমসাময়িক সমস্যা সমাধানকল্পে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে অঙ্গীকারবদ্ধ।
    4. সমস্যা চিহ্নিত করে Banker – Customer Relation সমুন্নিত রাখতে BWAB প্রচেষ্টা রাখবে।
  8. কোভিড-১৯ প্রাক্কালে ভার্চুয়াল প্লাটফরম গঠন করে অনলাইনে প্রয়োজনীয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং ভবিষ্যতেও সভা অনুষ্ঠিত হবে।
  9. ইতিমধ্যে BWAB Research and Development (R&D) Center প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে এবং BWAB Souvenir (Online) প্রকাশ করা হয়েছে। ”ভয়েজ অব্ ব্যাংকার্স” নামে ই-নিউজ লেটার ৩০/৩/২০২২ইং তারিখে প্রকাশিত হয়েছে এবং ইহা ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে প্রকাশিত হবে।
  10. BWAB Learning and HR Development Center প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। BWAB তাদের সদস্যগণকে ব্যাংক এবং আর্থিক সেক্টরে দক্ষ কার্যনির্বাহী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রশিক্ষণ, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, দৈনন্দিন জীবনে সম্মুখীন হওয়া বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা, কাস্টমারের মতামত এবং সমস্যার সমাধান এর জন্য উদ্যোগ গ্রহন করেছে। এই দক্ষতা তাদের প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে আরও বেশি ভূমিকা রাখবে। এর ফলে তারা ম্যানেজমেন্ট এর নিকট সন্তোষজনক কর্ম সম্পাদনে সক্ষম হবে এবং কর্মক্ষেত্রে সঠিকভাবে মূল্যায়িত হবে। একইসময়ে তাদের এই দক্ষতা প্রতিষ্ঠান পরিবর্তনের সময়ে গ্রহনযোগ্যতা ও মূল্যায়নে সহায়ক হিসেবে কাজ করবে।
  11. দরিদ্র, অক্ষম, পীড়িত, বন্যার্ত ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দূর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে থেকে সাহায্য করার জন্য BWAB প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।এ জন্য ইতিমধ্যে “BWAB Distressed Fund Collection Account” খোলা হয়েছে।এই তহবিল এর উদ্দেশ্য হচ্ছে দরিদ্র, অক্ষম ও পীড়িত ব্যক্তিকে কে সাহায্য করা। উক্ত তহবিল গঠনে সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিগণকে সহায়তা করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। যে কেউ যাকাতের অংশ অথবা CSR Fund থেকেও অংশ গ্রহন করতে পারেন।
  12. বার্ষিক সাধারণ সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, কোন সৎ এবং নিবেদিত ব্যাংকার কোন খারাপ পরিস্থিতির স্বীকার হলে BWAB তাহাকে সহায়তা করবে।
  13. Chattogram Regional Sub-Committee গঠন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে দেশের অন্যান্য এলাকাতেও একই রকমের Regional Sub-Committee গঠন করা হবে।
  14. BWAB সদস্যগণের মেধাবী সন্তান যাহারা বার্ষিক পরীক্ষায় ১ম স্থান অর্জন করেছে, তাদেরকে উৎসাহ প্রদান করার জন্য প্রতি বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠানে BWAB Crest প্রদান করা হচ্ছে।
  15. ২০২০ইং সন থেকে Business Personality Award প্রদান করা হচ্ছে।
  16. বর্তমান ম্যানেজিং ডাইরেক্টরগণ থেকে Best Banker Award এবং অবসরপ্রাপ্ত ম্যানেজিং ডাইরেক্টরগণ থেকে Best Prominent Bankers Award প্রদান ২০২১ইং সন থেকে শুরু করা হয়েছে।
  17. ২০২১ইং সন থেকে BWAB সদস্যগণের কর্মক্ষমতার স্বীকৃতি স্বরূপ BWAB Crest প্রদান করা হচ্ছে।
  18. পরিস্থিতির আলোকে BWAB সমসাময়িক সকল বিষয়ে Bank/NBFI এর কর্মকর্তা/কর্মচারীগণের কল্যাণের স্বার্থে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ অব্যাহত রাখছে।
  19. BWAB এর কার্যক্রম সমূহ অনন্য উচ্চতায় নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক, সরকার এবং আর্ন্তজাতিক মানের স্বীকৃতি অর্জনের জন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।